1. admin@lalmonirhatsongbad.com : admin :
শুক্রবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০২২, ১০:১০ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
হাতীবান্ধায় চলাচলের রাস্তা বন্ধ করায় এলাকাবাসীর মানববন্ধন লালমনিরহাটে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে অনিয়মের ১ম পর্ব ভুয়া ভাউচার দিয়েই সরকারী টাকা আত্বসাৎ হাতীবান্ধায় তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে বসত-বাড়ি ভাংচুরের অভিযোগ হাতীবান্ধায় চিকিৎসক ও প্রভাষক দম্পতির বিরুদ্ধে তালা ভাঙ্গার অভিযোগ হাতীবান্ধায় বাড়িসহ ১৭ শতকের জমি ও বাগান বিক্রয় হবে। হাতীবান্ধায় মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবীতে এলাকাবাসীর মানববন্ধন কুড়িগ্রামে আগমন চিত্রনায়িকা অপু বিশ্বাসের দেখতে জনতার ভীড় হাতীবান্ধার দক্ষিণ গোতামারী নূরানী ও হাফিজিয়া মাদ্রাসায় ভিত্তি প্রস্তুত শুভ উদ্বোধন করেন- চেয়ারম্যান মোনাব্বেরুল হক মোনা হাতীবান্ধা ও পাটগ্রাম উপজেলা বাসীকে শারদীয় দুর্গাপূজার শুভেচ্ছা জানিয়েছেন- মাহমুদুল হাসান সোহাগ হাতীবান্ধা গোতামারী ইউনিয়ন পরিষদের উদ্যেগে সামাজিক- সম্প্রীতি কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়।

তিস্তা ব্যারাজের ৪৪টি গেট খুলে দিয়েছে কর্তৃপক্ষ বন্যার আশঙ্কা

  • আপডেট সময়: বৃহস্পতিবার, ৯ জুন, ২০২২
  • ১৪৪ বার পঠিত

হুমায়ুন কবীর প্রিন্স  লালমনিরহাট জেলা প্রতিনিধিঃ

ভারী বর্ষণ ও উজানের পাহাড়ি ঢলে হঠাৎ করে লালমনিরহাটের তিস্তা নদীতে পানি বাড়ায় তিস্তা ব্যারাজের ডালিয়া পয়েন্টে ৪৪টি গেট খুলে দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। বৃহস্পতিবার (৯ জুন) দুপুর ১২টায় দেশের বৃহত্তম সেচ প্রকল্প লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলার তিস্তা ব্যারাজ ডালিয়া পয়েন্টে পানির প্রবাহ রেকর্ড করা হয় ৫২ দশমিক ০৫ সেন্টিমিটার। যা বিপৎসীমার ৫৫ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, কয়েক দিন ধরে টানা বৃষ্টি ও ভারতের গজলডোবা ব্যারেজে পানি বিপৎসীমা অতিক্রম করায় উজানের ঢল বেড়ে যায়। ফলে তিস্তা ব্যারাজের ডালিয়া পয়েন্টে পানির প্রবাহ বেড়েছে। যদিও এখনো জেলার তিস্তা নদীর পানি বিপৎসীমার নিচে রয়েছেন। তবে জেলার নিম্নাঞ্চল পানিতে নিমজ্জিত হয়েছে। এছাড়া পানি জমেছে জেলা শহর থেকে শুরু করে প্রত্যন্ত এলাকায়। এসব পানি তিস্তা ও ধরলা নদীতে চলে আসায় পানি অনেকটা বেড়েছে।

 

বাসিন্দারা জানায়, তিস্তা নদীর বাম তীরে ভাঙন ও বন্যা থেকে রক্ষায় আদিতমারী উপজেলার গোবর্দ্ধন এলাকায় সলেডি স্প্যার বাঁধ ২ নির্মাণ করে পানি উন্নয়ন বোর্ড। গত বছর কিছু অংশে ভাঙন দেখা দিলে তা সংস্কার শুরু করে। সেই সংস্কার কাজ শেষ হতে না হতেই আবারও সেটি ভেঙে যাচ্ছে। এত দিনে পানি কমে গেলেও এবার সেটির কোনো কাজ করেনি পানি উন্নয়ন বোর্ড।

স্থানীয়রা জানায়, শুকিয়ে যাওয়া মৃতপ্রায় তিস্তা আবারো ফুলে-ফেঁপে উঠেছে। পাটগ্রাম উপজেলার দহগ্রাম, হাতীবান্ধার সানিয়াজান, গড্ডিমারী, সির্ন্দুনা, পাটিকাপাড়া, সিংগিমারী, কালীগঞ্জ উপজেলার ভোটমারী, কাকিনা, আদিতমারী উপজেলার মহিষখোচা, পলাশী, সদর উপজেলার খুনিয়াগাছ, রাজপুর, গোকুন্ডা ইউনিয়নের তিস্তা তীরবর্তী জেলেদের কর্মব্যস্ততা দেখা দিয়েছে।

লালমনিরহাট পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) নির্বাহী প্রকৌশলী মিজানুর রহমান বলেন, উজানের পাহাড়ি ঢলে তিস্তার পানির প্রবাহ কিছুটা বেড়েছে। ব্যারাজ রক্ষার্থে সবগুলো জলকপাট খুলে না দিয়ে পানি নিয়ন্ত্রণ করার চেষ্টা করা হচ্ছে। প্রতি বছর জুন মাসে একটি বন্যা দেখা দেয়। তাই তিস্তাপাড়ের মানুষকে সর্তক থাকতে বলা হচ্ছে।

 

 

 

 

 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর
© স্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২১ লালমনিরহাট সংবাদ
Theme Customized By Shakil IT Park